২৪ ব্যাংকের স্প্রেড নির্ধারিত সীমার চেয়ে বেশি

বিজনেসটাইমস২৪.কম
ঢাকা, ০৬ জুন, ২০১৩:

nanবাংলাদেশ ব্যাংকের কঠোর নির্দেশনার পর সার্বিকভাবে স্প্রেড ৫ শতাংশে নেমে এসেছে। এপ্রিল মাসে আমানত ও ঋণের সুদহারের ব্যবধান (স্প্রেড) হচ্ছে ৪ দশমিক ৯৯ শতাংশ পয়েন্ট। কিন্তু সরকারি, বিশেষায়িত, বিদেশি ও বেসরকারি খাতের ২৪টি ব্যাংকের স্প্রেড ৫ শতাংশের অনেক উপরে। বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা যায়।

এদিকে গত ২৭ জানুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকে অনুষ্ঠিত ব্যাংকার্স সভায় আগামী মার্চ মাসের মধ্যে স্প্রেড ৫ শতাংশ পয়েন্টের নিচে নামিয়ে না আনলে লেন্ডিং রেটের ধারা এবং অন্যান্য চার্জের বিষয়ে গভীরতর বিশ্লেষণ সাপেক্ষে সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোর বিরুদ্ধে উপযুক্ত সিদ্ধান্ত নিতে দ্বিধা করবে না বলে বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নর জানিয়েছিলেন। এছাড়া ১৬ মে অনুষ্ঠিত ব্যাংকার্স সভায়ও স্প্রেড ৫ শতাংশ পয়েন্টে নামিয়ে না আনতে পারায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন তিনি।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী  বলেন, এখনো অনেক ব্যাংকের স্প্রেড ৫ এর উপরে, এজন্য তাদের তালিকা আমাদের ওয়েবসাইটে দিয়ে দিচ্ছি যাতে তারা লজ্জা পেয়েও সতর্ক হয়। প্রতিবেদন অনুযায়ী, বিদেশি মালিকানাধীন ব্যাংকগুলোর স্প্রেড সবচেয়ে বেশি। আলোচ্য সময়ে এ ব্যাংকগুলোর গড় স্প্রেড হচ্ছে ৮ দশমিক ৫২ শতাংশ পয়েন্ট। একই সময়ে বেসরকারি খাতের বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোর স্প্রেড ৫ দশমিক ১২ শতাংশে দাঁড়িয়েছে। অন্যদিকে রাষ্ট্রায়ত্ত খাতের ব্যাংকগুলোর স্প্রেড আগের মাসের মতোই ৩ দশমিক ৬৯ শতাংশ পয়েন্টে রয়েছে। আর বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোর স্প্রেড কিছুটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ দশমিক ০৭ শতাংশ পয়েন্ট। বিশেষায়িত ব্যাংকগুলোর মধ্যে বেসিক ব্যাংকের স্প্রেড হচ্ছে ৫ দশমিক ৫৭ শতাংশ পয়েন্ট।

এদিকে আমানতের গড় সুদহার আগের মাসের চেয়ে সামান্য কমেছে। পরিসংখ্যানে দেখা যায়, এপ্রিল মাসে ব্যাংকিং খাতে আমানতের ভারিত গড় সুদহার ৮ দশমিক ৬৭ শতাংশ থেকে কিছুটা কমে ৮ দশমিক ৬৫ শতাংশ হয়েছে। অন্যদিকে ঋণের গড় সুদহারও কিছুটা কমেছে। আলোচ্য মাসে ঋণের সুদহার দাঁড়িয়েছে ১৩ দশমিক ৬৪ শতাংশে, যা আগের মাসে ছিল ১৩ দশমিক ৭৩ শতাংশ। আলোচ্য সময়ে সবচেয়ে বেশি স্প্রেড রয়েছে বিদেশি খাতের ওরি ব্যাংকের। এ ব্যাংকের স্প্রেড হচ্ছে ৯ দশমিক ৮৭ শতাংশ পয়েন্ট। এরপর স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের স্প্রেড ৯ দশমিক ৮৭ শতাংশ পয়েন্ট। সিটি ব্যাংক এনএ-এর স্প্রেড ৮ দশমিক ৯৫ এবং এইচএসবিসি ব্যাংকের স্প্রেড ৮ দশমিক ৩৯ শতাংশ পয়েন্ট। অন্যদিকে, বেসরকারি খাতের ব্র্যাক ব্যাংকের স্প্রেড সবচেয়ে বেশি। মার্চ শেষে এ ব্যাংকের মোট স্প্রেড হচ্ছে ৯ দশমিক ১৯ শতাংশ পয়েন্ট। এছাড়া ডাচ-বাংলা ব্যাংক, এবি ব্যাংক, ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড, সিটি ব্যাংক লিমিটেড, ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক লিমিটেড, উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড, ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেড, প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড, ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড, স্যোসাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড, বাংলাদেশ কমার্স ব্যাংক লিমিটেড, প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড, যমুনা ব্যাংক লিমিটেডের স্প্রেড নির্ধারিত সীমার অনেক উপরে রয়েছে।

মন্তব্য প্রদান করুন

*


*