মাগুরায় চাষ হয়েছে হাইব্রিড বারি টমেটো-৮

বিজনেসটাইমস২৪.কম
ডেস্ক, ১৫ জুলাই, ২০১৩:

20120131-tomato-300মাগুরায় প্রথমবারের মতো চাষ হয়েছে গ্রীষ্মকালীন হাইব্রিড বারি  টমেটো-৮।  টমেটো মূলত শীতকালীন ফসল।

বারি টম্যাটো-৮ সারা বছর চাষ করা যায়। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট উদ্ভাবিত এ  টমেটোর উৎপাদন ক্ষমতা সাধারণ জাতের  টমেটোর তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ। সাধারণ জাতের  টমেটো যেখানে হেক্টরপ্রতি উৎপাদন হয় ২৫ থেকে ৩০ টন। সেখানে বারি  টমেটো-৮ উৎপাদন হয় ৪৫ থেকে ৫০ টন।

কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, শীতকালীন  টমেটোর মৌসুম শেষ হলে বারি টম্যাটো চাষের জন্য মার্চ মাসে বীজতলা তৈরি করা হয়। পরে এর চারা জমিতে লাগালে জুলাই মাসের মধ্যে বাজারে বিক্রি করতে পারবেন কৃষকরা। এ বছর মাগুরার সদর উপজেলার বাটিকা ডাটিকাডাঙ্গা গ্রামের কৃষক সরোয়ার হোসেন, উজ্জ্বল কুমার ম-ল, বা”চু মোল্যার প্রত্যেকের ৫ শতাংশ করে ১৫ শতক জমিতে দ্বিতীয় শস্য বহুমুখী প্রকল্পের আওতায় পরীক্ষামূলকভাবে প্রদর্শনী প্লট তৈরি করে চাষ করা হয়েছে।

কৃষকরা জনিয়েছেন, প্রদর্শনী প্লটে চাষ করা বারি  টমেটো-৮ এর ফলন ভালো হয়েছে। যা আগামী কিছু দিনের মধ্যে বাজারে বিক্রয়ের জন্য তোলা হবে। চাষকৃত জমি থেকে ৪০ থেকে ৫০ মণ  টমেটো উৎপাদিত হওয়ার পাশাপশি কৃষকরা এটি ভালো দামে বিক্রি করতে পারবে বলে আশা করছে কৃষি বিভাগ।

মাগুরা আঞ্চলিক মসলা গবেষণা কেন্দ্রের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান বলেন, বাজারে  টমেটোর চাহিদার কথা মাথায় রেখে সারা বছর চাষযোগ্য গ্রীষ্মকালীন বারি  টমেটো-৮ নামে হাইব্রিড জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে। এটি সাধারণ জাতের তুলনায় আকারে কিছুটা বড় এবং দেখতে সুন্দর। এটি কৃষকরা পরিবর্তিত আবহাওয়ায় চাষ করে ভালো ফলন পাওয়ার পাশাপাশি আর্থিকভাবে লাভবান হতে পারবে। আমরা হাইব্রিড জাতের এই  টমেটো চাষ সম্প্রসারণের জন্য কৃষি বিভাগের সঙ্গে কাজ করছি।

সদর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সুব্রত কুমার চক্রবর্তী বলেন, এ বছর আমরা সদর উপজেলার বাটিকাডাঙ্গা গ্রামে ৩ জন কৃষককে ১৫ শতাংশ জমিতে দ্বিতীয় শস্য বহুমুখী প্রকল্পের আওতায় পরীক্ষামূলকভাবে হাইব্রিড জাতের গ্রীষ্মকালীন বারি  টমেটো-৮ চাষ করেছি। এ জাতের  টমেটো চাষ করে কৃষকরা শীত গ্রীষ্ম উভয় মৌসুমেই চাষ করে সারা বছর ফলন পাবে।

Print Friendly

মন্তব্য প্রদান করুন

*


*