শিরোনাম:

স্বল্প সুদে ঋণ পাবে প্রান্তিক জনগোষ্ঠী

বিজনেসটাইমস২৪.কম
ঢাকা, ০৭ ডিসেম্বর, ২০১৩:

vvvপ্রাতিষ্ঠানিক আর্থিক সেবা বঞ্চিত রিকশাচালক, পান-বিড়ির দোকানদার, ফেরিওয়ালা, মুচি এবং চা স্টলের মালিকের মতো ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী ও সমপর্যায়ের প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকেও ঋণ সুবিদার আওতায় আনা হচ্ছে। স্বল্প সুদে ঋণ দেয়ার এই উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। শিগগিরই এই বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

সম্প্রতি দশ টাকার হিসাবধারীদের জন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংকে গঠিত ২০০ কোটি টাকার পুনঃঅর্থায়ন তহবিলের একটি অংশ এক্ষেত্রে ব্যয় করা হবে। এর আওতায় মাত্র ৬ শতাংশ সুদে তারা ঋণ পাবেন। একজন সর্বোচ্চ ৪০ হাজার টাকার ঋণ নিতে পারবেন বলেও জানা গেছে।

সূত্রমতে, বিশেষ এই ঋণ ব্যবস্থায় বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলো যুক্ত হবে। তবে এক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গ্রীন অ্যান্ড সিএসআর বিভাগের সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে হবে। এরপর চুক্তিবদ্ধ ব্যাংক ২০০ কোটি টাকা তহবিলের আওতায় অর্থায়ন সুবিধা পাবেন। তবে চুক্তি অনুযায়ী তারা কোনভাবেই ঋণ গ্রহীতার কাছ থেকে ৬ শতাংশের বেশী সুদ নিতে পারবেন না।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা জানান, আর্থিক সেবাভূক্তি সম্প্রসারণের অংশ হিসেবে রিকশাচালক ও পান-বিড়ির দোকানদার ছাড়াও কামার-কুমার, সেলুনের মালিক, ক্ষুদ্র ফল ব্যবসায়ী, ঘড়ি ও চাবি মেরামতকারী, ফ্ল্যাক্সি লোডের দোকানদার, ফুট পাথের অন্যান্য ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, ক্ষুদ্র কৃষি ও পোল্ট্রি খামারীসহ সমপর্যায়ের ব্যবসায়ী ও প্রান্তিক জনগোষ্ঠীরা এই ঋণ সেবার আওতায় আনা হচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে আরও জানা গেছে, মাত্র ৬ শতাংশ সুদহারে যে ঋণ প্রদান করা হবে, তার মধ্যে সাড়ে ৪ শতাংশ সুদ পাবে তহবিল ব্যবহারকারী বাণিজ্যিক ব্যাংক এবং দেড় শতাংশ সুদ পাবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এই দেড় শতাংশ সুদে যদি তহবিল পরিচালনা ব্যয় মেটানো না যায়, সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংক সিএসআরের আওতায় ভর্তুকি দিয়ে তহবিল পরিচালনার অবশিষ্ট ব্যয় মেটাবে।

মন্তব্য প্রদান করুন

*


*