ইফতার মাহফিলে বিএনপিকে এরশাদ

‘টেলিভিশনে হুমকি আর বিবৃতিতে আন্দোলন হয় না’

বিজনেসটাইমস২৪.কম
ঢাকা, ০৮ জুলাই, ২০১৪:

earপ্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, বিএনপির নাম নিশানা নেই। তারা মাঠে নেই। আছে শুধু টেলিভিশনে হুমকি আর বিবৃতি। টেলিভিশনে হুমকি আর বিবৃতিতে আন্দোলন হয় না।

রাজধানীর ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় জাতীয় পার্টি ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আয়োজিত ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

সমপ্রতি বিরোধী দল নিয়ে ট্রান্সপারেনসি ইন্টারন্যাশনাল অব বাংলাদেশের (টিআইবি) করা রিপোর্টের তীব্র সমালোচনা করেন এরশাদ।

তিনি বলেন, টিআইবির রিপোর্ট সঠিক নয়। বিরোধিতার মানে যদি অশ্রাব্য কথাবার্তা, ফাইল ছোড়াছুড়ি ও ওয়াকআউট হয়। আমরা তা চাই না। আমরা হরতালে বিশ্বাসী নই। আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলনে বিশ্বাসী।

এরশাদ বলেন, কিছুদিন যাবত কয়েকটি পত্রিকা জাতীয় পার্টির বিরুদ্ধে বিভ্রান্তিকর খবর ছাপছে। পত্রিকার খবর সঠিক নয়। জাপা মৃত ছিল। জাপায় এখন প্রাণসঞ্চার হয়েছে। জাপা এগিয়ে যাচ্ছে। দশ বছর পর ছাত্রসমাজের কাউন্সিল হয়েছে। বরিশালে ১১ বছর, খুলনায় ৮ বছর, রাজশাহীতে ৬ বছর পর আমরা কাউন্সিল করেছি। আগামীতে আমাদের লক্ষ্য ১৫১ সিট। আমরা ক্ষমতায় যাব।

তিনি বলেন, ১৫ দল ও ৭ দলের সিদ্ধান্ত মোতাবেক আমি ক্ষমতা ছেড়েছিলাম। কিন্তু আমাকে ক্ষমতা ছাড়ার ৬ দিনের মধ্যে জেলে নেয়া হয়েছিল। সে নির্বাচনে আমার নমিনেশন বাতিল করা হয়েছিল। কিন্তু রংপুরে ৬ লাখ মানুষ মিছিল করায় আমাকে নির্বাচন করতে দেয়া হয়।

এরশাদ বলেন, সেদিন আমি নির্বাচন করতে পারলে ৭০-৮০টি আসন পেতাম। বিএনপি ক্ষমতায় আসতে পারত না। এ বিষবৃক্ষ সৃষ্টি হতো না। আওয়ামী লীগের অদূরদর্শিতার কারণে এ বিষবৃক্ষ সৃষ্টি হয়েছে।

ইফতার মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন জাপার ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সভাপতি এডভোকেট কাজী ফিরোজ রশিদ।

ইফতার মাহফিলে ছিলেন- জাপা মহাসচিব জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু, প্রেসিডিয়াম সদস্য স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙা, প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, রওশন আরা মান্নান, প্রেসিডিয়াম সদস্য মীর আবদুস সবুর আসুদ, হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, যুগ্ম মহাসচিব এডভোকেট রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, নুরুল ইসলাম নুরু, ছাত্রসমাজের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মিরু, প্রচার সম্পাদক সুলতান মাহমুদ প্রমুখ।

মন্তব্য প্রদান করুন

*


*