দক্ষিণ তালপট্টির অধিকার হারালো বাংলাদেশ

বিজনেসটাইমস২৪.কম
ঢাকা, ০৮ জুলাই, ২০১৪:

South-Talpattiমিয়ানমারের পর সমুদ্রসীমা মামলার রায়ে ভারতের সঙ্গে বিরোধপূর্ণ নতুন ১৯ হাজার ৪৬৭ বর্গকিলোমিটার জলসীমার অধিকার পেল বাংলাদেশ। তবে বঙ্গোপসাগরে হাড়িয়াভাঙ্গা নদীর মোহনার অদূরে বাংলাদেশের সমুদ্রসীমায় দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপ হারিয়েছে বাংলাদেশবাসী।

বিরোধপূর্ণ ২৫ হাজার ৬০২ বর্গকিলোমিটারের মধ্যে দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপের কোনো অস্তিত্ব নেই বলে সমুদ্র রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে। ফলে এই এলাকাটি এখন ভারতেরই অধীনে চলে গেল।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সমুদ্র বিষয়ক সচিব রিয়ার এডমিরাল অব. মো. খুরশেদ আলম বলেন, “এই দ্বীপ নিয়ে বাংলাদেশ দাবি করতে পারবে না।”

মঙ্গলবার দুপুরে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী রায়ের বিস্তারিত তুলে ধরেন। তিনি বলেন, বঙ্গোপসাগরে ২০০ নটিক্যাল মাইল পর্যন্ত একচ্ছত্র অর্থনৈতিক অঞ্চলে এবং এর বাইরে মহীসোপান অঞ্চলে বাংলাদেশের নিরঙ্কুশ ও সার্বভৌম অধিকার নিশ্চিত করে রায় ঘোষণা করেছে আদালত।

অ্যাডমিরাল খোরশেদ আলম বলেন, “১৯৭০ সালের প্রলয়ঙ্করী ঘূর্ণিঝড়ের পর হাড়িয়াভাঙ্গা নদীর মোহনার অদূরে বাংলাদেশের সমুদ্রসীমায় দক্ষিণ তালপট্টি দ্বীপ জেগে ওঠে। নদীর মোহনা থেকে দুই কিলোমিটার দূরে এর অবস্থান ছিল। ১৯৭৪ সালে একটি আমেরিকান স্যাটেলাইটে আড়াই হাজার বর্গমিটার এ দ্বীপটির অস্তিত্ব ধরা পড়ে। পরে রিমোট সেন্সিং সার্ভে চালিয়ে দেখা গিয়েছিল, দ্বীপটির আয়তন ক্রমেই বাড়ছে এবং একপর্যায়ে এর আয়তন ১০ হাজার বর্গমিটারে দাঁড়ায়।”

তবে ১৯৮৬ সালের পর থেকে এ দ্বীপের কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি বলেও উল্লেখ করেন খোরশেদ আলম। এমনকি ২০১০ সালে বাংলাদেশ সরকার সর্বশেষ যে আদর্শ মানচিত্র প্রস্তুত করা হয় সেখানেও দক্ষিণ তালপট্টির কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি বলে জানান তিনি।

উল্লেখ্য, ১৯৫৪ সালে প্রথম দ্বীপটির অস্তিত্ব ধরা পড়ে। দ্বীপটির মালিকানা বাংলাদেশ দাবি করলেও ভারত ১৯৮১ সালে সেখানে সামরিক বাহিনী পাঠিয়ে তাদের পতাকা ওড়ায়। ভারতের যুক্তি, ১৯৮১ সালের আন্তর্জাতিক জরিপ অনুযায়ী দক্ষিণ তালপট্টির পূর্ব অংশটির অবস্থান ভারতের দিকে, যা ১৯৯০ সালের বৃটিশ অ্যাডমিরালটি চার্টেও স্বীকৃত।

আশির দশকের পুরোটা সময় তালপট্টি নিয়ে ভারত-বাংলাদেশ বিরোধ চলে। ১৯৭৯ সালে ভারতের তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী দেশাই বাংলাদেশ সফরে এলে বাংলাদেশ সরকার তালপট্টির ব্যাপারে যৌথ সমীক্ষার প্রস্তাব দেয়। কিন্তু রাজনীতির পট পরিবর্তনের তা আর হয়নি।

মন্তব্য প্রদান করুন

*


*