ফাঁসি কার্যকরের আদেশ দিয়েছি, সময় ৭ দিন

বিজনেসটাইমস২৪.কম
ঢাকা, ০৫ নভেম্বর, ২০১৪:

aaআপিলের রায়ের ৭ দিনের মধ্যে ক্ষমা ও প্রাণভিক্ষা না চাইলে পরবর্তী যে কোনও সময়ে কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় কার্যকর করা হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

বুধবার রাজধানীর গুলশানে আইনমন্ত্রীর বাসভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। আইজি প্র্রিজনকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বাসায় এসে তিনি এই সংবাদ সম্মেলন করলেন।

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত কামারুজ্জামানকে রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাওয়ার জন্য সাত দিন সময় দেওয়া হয়েছে। এই সময়ে কামারুজ্জামান নিজের দোষ স্বীকার করে মাফ চেয়ে রাষ্টপতির কাছে ক্ষমা চাইতে হবে। অন্যথায় সাত দিন পর তার সাজা কার্যকর করা হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে আনিসুল হক বলেন, কাদের মোল্লার ক্ষেত্রে রিভিউ গ্রহণ করেননি আপিল বিভাগ। আপিল বিভাগ রিভিউ পিটিশন খারিজ করে দিয়েছিলেন। এটাকে একটা নজির হিসেবে আমরা দেখছি।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে রায় কার্যকর করার পদক্ষেপ শুরু করতে জেল কর্তৃপক্ষকে আদেশ দেওয়া হয়েছে। যেই মুহুর্ত থেকে কামারুজ্জামান ফাঁসির আদেশ শুনেছেন সেই মুহুর্ত থেকে দিন গণনা শুরু হবে বলেও জানান তিনি। তিনি বলেন, সংবিধানের ৪৯ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির কাছে দোষ স্বীকার করে ক্ষমা চাওয়ার সুযোগ আছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, যুদ্ধাপরাধের বিচারে কারোর সঙ্গে আপোস করবে না সরকার। তিনি বলেলেছন, আমি আমেরিকা ও ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ সবাইকে বলে দিয়েছি যে, আমাদের আইনে যে সাজার কথা বলা হয়েছে সে ব্যাপারে আমার সরকার কোনো আপোস করবে না।

সাত দিন সময়ের বিষয়ে তিনি বলেন, রায় কার্যকরে সংবিধানে কোনো সময় দেয়া নেই। তবে একটা ‘‘রিজনেবল’’ সময় দেয়া দরকার। সেই সময়টা জেল কোড অনুযায়ী সাত দিন হতে পারে।

বুধবার দুপুর ১২টা ৪০ মিনিটের দিকে আইনমন্ত্রী গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বৈঠক করেন বলে জানায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়সূত্র।

এদিকে আইন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্রও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আইনমন্ত্রীর দেখা করতে যাওয়ার খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে।

সূত্র আরও জানায় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের দেখা হওয়ার আগে তিনি কথা বলেন আইজি প্রিজন বিগ্রেডিয়ার জেনারেল সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিনের সঙ্গে।

বুধবার দুপুর ১২টা থেকে সোয়া ১২টা পর্যন্ত রুদ্ধদ্বার বৈঠক করেন আইনমন্ত্রী ও আইজি প্রিজন। এর পরপরই আইনমন্ত্রী বেরিয়ে যান প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার জন্য।

ধারণা করা হচ্ছে, কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় কার্যকর করার বিষয়েই আলোচনা হচ্ছে এসব বৈঠকে। তবে কোনও দায়িত্বশীল সূত্র থেকে বৈঠকের বিষয়বস্তু নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এদিকে, বুধবার সকালে কামারুজ্জামানের সঙ্গে তার পরিবারের সদস্যরা কেন্দ্রীয় কারাগারে দেখা করতে যান।

অন্যদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বুধবার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে দেখা করতে যাচ্ছেন। তবে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় জানিয়েছে, সাম্প্রতিক আরব আমিরাত সফর নিয়ে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করতেই বঙ্গভবন যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী।

মন্তব্য প্রদান করুন

*


*