বিজনেসটাইমস২৪.কম
ঢাকা, ০৩ ফেব্রুয়ারী, ২০১৫:

aturবাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ড. আতিউর রহমান বলেছেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের সব কার্যক্রম ডিজিটালাইজড করার প্রক্রিয়া চলছে।

মঙ্গলবার রাজধানীর মতিঝিলে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে ‘ইনফরমেশন ফর ডিপোজিট ইন্সুরেন্স প্রিমিয়াম অ্যাসেসমেন্ট (আইডিআইপিএ)’ সফটওয়্যারের কার্যক্রম উদ্বোধনকালে তিনি একথা বলেন। সব ব্যাংকের বিমাযোগ্য আমানতের ওপর প্রিমিয়াম নির্ধারণ ও হিসাব সংরক্ষণের সুবিধার্থে কেন্দ্রীয় ব্যাংক এ সফটওয়্যার চালু করেছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক আব্দুল হকের সভাপতিত্বে সফটওয়্যারটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ডেপুটি গভর্নর এস কে চৌধুরীসহ কেন্দ্রীয় ও সব তফসিলি ব্যাংকের উদ্বোধনী কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

গভর্নর বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংকের উদ্যোগে আইডিআইপিএ সফটওয়্যারসহ এ পর্যন্ত ৮০টি সফটওয়্যার তৈরি করা হয়েছে। এসব সফটওয়্যার আমদানি করতে হলে প্রচুর অর্থ খরচ হতো।

ব্যাংকিং সিস্টেমের ডিজিটালাইজেশন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পাবলিক ব্যাংকগুলো কোর ব্যাংকিংয়ে পিছিয়ে আছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক ২০১৬ সালের মধ্যে দেশে কার্যরত সব ব্যাংককে কোর ব্যাংকিং সলিউশনের আওতায় নিয়ে আসার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করেছে।

আতিউর রহমান জানান, সরকারের সহযোগিতায় বাংলাদেশ ব্যাংক দেশের সব ব্যাংককে জাতীয় পরিচয়পত্র ডাটাবেইজে প্রবেশাধিকার দেওয়ার কাজ করছে। এমনটি করা গেলে মোবাইল ব্যাংকিংসহ অন্যান্য কার্যক্রমে জাতীয় পরিচয়পত্রের ব্যবহার করা যাবে, যা একইসাথে অ্যাকাউন্টধারীর পরিচয় নিশ্চিতকরণ এবং লেনদেন সহজতর করবে।

তিনি আরও বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংক সাধারণ মানুষের ভরসার কেন্দ্র। তাই জনসাধারণের আমানতের নিশ্চয়তা দিতে আইডিআইপিএ সফটওয়্যার চালু করা হয়েছে।

অনুষ্ঠানে এস কে সুর চৌধুরী জানান, নতুন চালুকৃত সফটওয়্যারটি বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে কেন্দ্রীয়ভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হবে। এটি দ্বারা সহজে স্বয়ংক্রিয়ভাবে আমানতের বিপরীতে প্রিমিয়াম নির্ধারণ এবং হিসাব-নিকাশ করা যাবে। এতদিন পর্যন্ত এ কাজগুলো হাতে হাতে বা ম্যানুয়ালি করা হতো।

তিনি আরও বলেন, নতুন আমানত সুরক্ষা আইন প্রস্তাব ইতোমধ্যে অর্থমন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। এতে বিমাযোগ্য আমানতের সর্বোচ্চ পরিমাণ এক লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে দুই লাখ টাকায় উন্নীত করা বা বর্তমানের ৮৫ শতাংশের স্থলে ৯৩ শতাংশ আমানত সুরক্ষার প্রস্তাব করা হয়েছে।

মন্তব্য প্রদান করুন

*


*