জানুন বুঝুন বিনিয়োগ করুন : মেজর সৈয়দ গোলাম ওয়াদুদ (অব.)

বিজনেসটাইমস২৪.কম
ঢাকা, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১২:

বুঝে-শুনে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগের জন্য বিনিয়োগকারীদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন শার্প সিকিউরিটিজ লিমিটেডের পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মেজর সৈয়দ গোলাম ওয়াদুদ (অব.)।

তিনি অনলাইন নিউজপেপারস বিজনেসটাইমসের রিপোর্টার কল্পনা আলমের সঙ্গে একান্ত আলাপচারিতায় একথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, ন্যূনতম জ্ঞান নেই, এমন অনেক লোক যারা পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করেন। কেউ ভাগ্যচক্রে দাও মারেন আর অনেকেই অজ্ঞতা ও অসচেতনতার কারণে বড় ধরনের আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েন। তাই এটা মনে রাখতে হবে যাদের পুঁজিবাজার সম্পর্কে জ্ঞান আছে, যারা ব্যবসায় ঝুঁকি নিতে পারেন, কেবল এমন পেশাদার লোকেরই উচিত এখানে বিনিয়োগ করা।

এছাড়া তিনি কথা বলেছেন বাজারের সার্বিক অবস্থা নিয়ে। তা নিচে তুলে ধরা হল-

বিজনেসটাইমস: বর্তমান পুঁজিবাজার পরিস্থিতি নিয়ে কিছু বলুন?

মেজর সৈয়দ গোলাম ওয়াদুদ (অব.): শেয়ারবাজার এখন স্বাভাবিক আচারণের দিকে যেতে শুরু করছে। শেয়ারের দাম কখন বাড়বে কখন কমবে সেটি নির্ভর করবে বিনিয়োগকারীদের লেনদেনের উপর। এক্ষেত্রে শেয়ার বিক্রির উপর বেশি চাপ পড়লে বাজার ধরে রাখা যায় না। বাজারের যে খারাপ দিকটা ছিল তা কিন্তু আমরা একটা সময় দেখে ফেলেছি। বাজার যেহেতু এখন একটা ধারায় ফিরে এসেছে এবং এ ধারা বজায় থাকলে শিগগিরই বাজারে একটা স্থিতিশীল অবস্থা আসবে।

বিজনেসটাইমস: বাজার এখনো সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা ফিরে পাচ্ছে না কেন?

মেজর সৈয়দ গোলাম ওয়াদুদ (অব.): বাজার সব সময় নিজস্ব গতিতে চলে।  বাজারে গতি আনতে গেলেই যত সমস্যার সৃষ্টি হবে। আমরা দেখেছি  সূচক যখন ৩৮০০-তে নেমে আসল তখন থেকে কিন্তু বাজার ঘুরে দাঁড়াল। তারপর  আবার কিন্তু মূল্য সংশোধন হওয়ার পর থেকে বাজার বাড়তে শুরু করল। বাজারে যারা কেনাবেচা করেন তারাই কিন্তু এ গতিশীলতা বৃদ্ধি করেন।  সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থা থাকতে হবে। তাছাড়া যারা বাজারের দায়িত্বে আছেন তারা কিভাবে বাজারকে পরিচালনা করছেন তার উপর নির্ভর করে বাজারের গতিশীলতা। এছাড়া বাজার উঠানামার প্রয়োজন আছে। আর কোনো বাজারই স্থায়ী না। স্থায়ী হলে তো পুঁজিবাজার বন্ধ হয়ে যাবে। যে কোনো বাজারে চাহিদা থাকলে মূল্য বাড়ে আর চাহিদা না থাকলে মূল্য কমে। শুধু পুঁজিবাজার কেন নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দামও কিন্তু প্রতিদিন স্থায়ী থাকে না । বাজার কোনদিন চড়া তো কোন দিন দাম কম। যোগান বেশি থাকলে দাম কম হচ্ছে আর যোগান কম হলে দাম বেড়ে যাচ্ছে। বাজারে উঠানামা থাকবেই। যদি নিয়মের গড়মিল না হয় তাহলে আমি বলব এটা একটা সুস্থ বাজার।

বিজনেসটাইমস:  বাজারের বর্তমান পরিস্থিতিতে অনেক বিনিয়োগকারী আইপিও আবেদন করছে। এ সম্পর্কে আপনার মন্তব্য কি?

মেজর সৈয়দ গোলাম ওয়াদুদ (অব.):  এতেই বোঝা যায় বাজারে বিনিয়োগকারীদের আস্থা আছে। আস্থা আছে বলেই তারা বিনিয়োগ করেন কিংবা আইপিওতে শেয়ার কিনতে পারেন। সেকেন্ডারি মার্কেট থেকে আইপিওতে আস্থা বেশি। আর সেকেন্ডারি মার্কেট হলেই যে, কম দমে শেয়ার কিনতে হবে এবং কম দামে শেয়ার বেচতে হবে- এটা সম্পূর্ণ ভুল ধারণা।  বাজার যখন কম ছিল তখন অনেকে শেয়ার কিনতে ব্যর্থ হয়েছে। আবার বাজার যখন বাড়ছে তখন অনেকে বাজারে আসার আগ্রহ দেখাচ্ছে। এটা আমি বলব যে, তাদের জ্ঞানের অভাব। ক্যাপিটাল সম্পর্কে আমাদের আরো জানতে হবে।

বিজনেসটাইমস: ডিএসই, এসইসি, সিএসই এবং মার্চেন্ট ব্যাংক তাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছে বলে আপনি কি মনে করেন ? তাছাড়া বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) প্রকাশিত বাংলাদেশের ব্যবসায়িক পরিবেশ সমীক্ষা  ২০১২-তে এসইসিকে ৭৪%  অকার্যকর বলে দাবি করেছে।  আপনি এ সম্বন্ধে কি মনে করছেন ?

মেজর সৈয়দ গোলাম ওয়াদুদ (অব.):  আসলে সিপিডি-এর প্রকাশিত তথ্য নিয়ে আমি কিছু বলতে চাচ্ছি না। আপনি যেসব প্রতিষ্ঠানের কথা বলছেন তারা অতীতে অনেক আলোচিত এবং সমালোচিত হয়েছে। তো সময়ই বলে দিবে আসলে এরা কি দায়িত্ব পালন করছে। আমি ব্যক্তিগতভাবে বলব আমরা এসইসি থেকে আগের থেকে অনেক ভালো সেবা পাচ্ছি। একই সঙ্গে ডিএসই নিয়েও আমি খুবই গর্বিত। কারণ তারা এ মুহূর্তে অনেক ভালো কাজ করছে। তারা সকলেই মিলে বাজারে স্থিতিশীলতা নিয়ে আসার চেষ্টা করছে।

বিজনেসটাইমস:  নভেম্বরে তো সার্ভিলেন্স সফটওয়্যার আসছে। এই সফটওয়্যার স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা কতটুকু নিশ্চিত করবে?

মেজর সৈয়দ গোলাম ওয়াদুদ (অব.): যে সফটওয়্যারটা আসবে সেটা সম্পর্কে আসলে আমি তেমন কিছুই জানি না। তবে স্পষ্টভাবে যদি এটি সার্ভিলেন্স সফটওয়্যার হয়ে থাকে তবে এটা অবশ্যই সার্ভিলেন্সে কাজ করবে।

বিজনেসটাইমস:  নতুন বিনিয়োগকারী এবং সর্বোপরি বিনিয়োগকারীদের প্রতি আপনার পরামর্শ কি?

মেজর সৈয়দ গোলাম ওয়াদুদ (অব.): বাজারে বিনিয়োগে অনেকেরই রাতারাতি বড়লোক হওয়ার প্রত্যাশাটি প্রকটভাবে কাজ করে। আর তাই না জেনে না বুঝে নিজের কষ্টার্জিত জমানো টাকা কিংবা সহায় সম্পত্তি বিক্রি করে শেয়ারবাজারে বিনিায়োগ করেন। তাদের ভাবনা শেয়ারে বিনিায়াগ মানেই কাড়ি কাড়ি লাভ। কারো কারো স্বপ্ন যে পূরণ হয় না তা নয়; তবে অনেকেই তাদের বিনিয়োগ হারিয়ে এক পর্যায়ে নিঃস্ব হয়ে ফেরেন। আর তখন তারা বুঝতে পারেন, তাদের ভুলগুলো। এরমধ্যে অন্যতম ভুলটিই হয়, তাদের বিনোয়োগ ঠিকমতো হয় না। তাই শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের আগে বাজারে বুঝে-শুনে বিনিয়োগ করতে হবে। প্রথমে শেয়ার ব্যবসাটা কি সেটা বুঝতে হবে। শুধু শেয়ার কিনলেই লাভ হবে- এ রকম ভ্রান্ত ধারণা নিয়ে বাজারে আসা উচিত নয়। শেয়ার বাজারে যারা অনেক অভিজ্ঞ তাদের সাহায্য নিন।

 

 

 

Comments

  1. রাসেল says:

    ভাই আপনি আমার মনের কথাগুলো বলেছেন। আপনাকে ধন্যবাদ। কিন্তু বেশীরভাগ বিনিয়োগকারী আপনার কথাকে পাত্তা দিতে চাইবে না। আপনাকে পাগল বলতেও দ্বিধা করবে না।

  2. sumi says:

    apnar shathe ami ak mot . na jene na buje biniog kora uchit na.

মন্তব্য প্রদান করুন

*


*