মিউচ্যুয়াল ফান্ড পুঁজিবাজারের প্রাণ : এ. কাদের চৌধুরী

বিজনেসটাইমস২৪.কম
ঢাকা, ২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১২:

মিউচ্যুয়াল ফান্ডকে পুঁজিবাজারের প্রাণ বলে অভিহিত করেছেন ফনিক্স সিকিউরিটিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এ. কাদের চৌধুরী।

তিনি আরো বলেন, মার্কেট বাড়লেই কিন্তু মিউচ্যুয়াল ফান্ডের প্রয়োজন পড়বে। আর মিউচ্যুয়াল ফান্ড থাকলেই বাজারের কার্যক্রম বেড়ে যায়। আর কার্যক্রম বাড়লেই এর প্রভাব এসে পড়বে দামের উপর। এখন আমরা যেটা দেখছি এটাই কিন্তু আছে।  মিউচ্যুয়াল ফান্ড বাড়লে পুঁজিবাজার ধীরে ধীরে ভালোর দিকে যাবে।

তিনি বিজনেসটাইমসের রির্পোটার কল্পনা আলমের সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন। তার সাক্ষাকারের কিছু অংশ নিচে তুলে ধরা হলো।

প্রশ্ন : বর্তমান বাজার পরিস্থিতি কিভাবে দেখছেন?

এ. কাদের চৌধুরী : টানা দেড় বছর খারাপ থাকার পর এখন বাজার কিছুটা ভালোর দিকেই। তবে অতীতে বাজার খারাপ হওয়ার যথেষ্ট কারণ ছিল। স্থিতিশীলতা আনয়নে নানা উদ্যোগ, সংষ্কার ও মামলার ঝক্কি-ঝামেলার কারণে বাজারে  সুস্থ পরিবেশ আসতে পারেনি। তবে এখন সেসব প্রতিবন্ধকতা নেই বললেই চলে। এখন বাজার তার আপন গতি ফিরে পেয়েছে বলে আমি মনে করি।
আর বাজার ঠিক না হলে দেশের একটা বিরাট ক্ষতি হয়ে যেত। এর ফলে অনেক উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড মুখথুবড়ে পড়তো। কিন্তু বাজার ভালো হওয়াতে সেই অর্থনৈতিক বাধাগুলো দূর হয়েছে।

যেমন ধরুন আমাদের এই পদ্মা সেতু হলে জিপিডিতে প্রায় ১.২% প্রবৃদ্ধি যোগ হবে। এর ফলে আমাদের অর্থনীতিতে অনেক কার্যক্রম ত্বরান্বিত হবে।  এর ফলে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে বিরাট এক পরিবর্তন আসবে। এসব কারণে বাজার বর্তমান সময়ের চেয়েও আরো ভালো অবস্থানে যাবে।

প্রশ্ন :  সপ্তাহ দুয়েক ধরে মার্কেট অনেক ভালো অবস্থায় আছে। তো মার্কেট কি আপনি স্বাভাবিক মনে করেন?

এ. কাদের চৌধুরী : আমিতো মার্কেট স্বাভাবিক আছে বলে মনে করি এবং আমরা আশাবাদী যে মার্কেট আরো ভালো হবে। মার্কেটের জন্য ডিমিউচুয়ালাইজেশনসহ আরো নানা উদ্যোগ যদি সফল ভাবে বাস্তবায়ন হয় তাহলে মার্কেট আরো ভালো অবস্থানে চলে আসবে। মার্কেটের জন্য নতুন যে সফটওয়্যার হয়েছে তাও কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ। এজন্য যে টাকা-পয়সা, টেকনোলজি ও দক্ষতার দরকার আমাদের এগুলোর যথেষ্ট সাপোর্ট রয়েছে। এগুলো বাস্তবায়ন হলে আমি মনে করি মার্কেট আরো ভালো হবে।

প্রশ্ন:  ২% শেয়ার ধারণে ব্যর্থ পরিচালকদের পরিচালক পদ বাতিলের জন্য এসইসি নির্দেশনা দিয়েছে। এর ফলে বাজারে কি কোনো প্রভাব পড়বে?

এ. কাদের চৌধুরী : না, আমি মনে করি আগে যেটা ছিল সেটাই ভালো ছিল। দুই শতাংশ শেয়ার ধারণ আমি যৌক্তিক মনে করি না। দুই শতাংশ থাকলেই যে বাজার ভালো হয়ে যাবে, আবার যারা ৫ শতাংশ ধারণ করবে তারা যে গেইনার হয়ে যাবে তা কিন্তু নয়।

প্রশ্ন: অমনিবাস অ্যাকাউন্টের অনিয়মের ক্ষেত্রে এসইসি ১৪ জন বড় বিনিয়োগকারীর বিরুদ্ধে মামলা করেছে। এতে করে বাজারে কোনো ইতিবাচক প্রভাব পড়বে কিনা?

এ. কাদের চৌধুরী : এ অ্যাকাউন্ট তো আগেও ছিল। কিন্তু এটার কোনো নিয়মনীতি ছিল না। এখন এর নিয়মনীতি  হচ্ছে। এতে স্বচ্ছতা আরো বাড়বে বলে আমি মনে করি। সুতরাং এটার একটা প্রভাব মার্কেটে পড়বে বলে আমি আশাবাদী।

প্রশ্ন: ব্যাংক এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ডের খাতগুলো অধিক হারে বাড়ছে এক্ষেত্রে আপনার মতামত কি।

এ. কাদের চৌধুরী : ব্যাংক এবং মিউচ্যুয়াল ফান্ডের খাত বাড়বে এটা তো স্বাভাবিক। মার্কেট বাড়লেই কিন্তু মিউচ্যুয়াল ফান্ডের প্রয়োজন পড়বে। আর মিউচ্যুয়াল ফান্ড থাকলেই বাজারের কার্যক্রম বেড়ে যায়। আর কার্যক্রম বাড়লেই এর প্রভাব এসে পড়বে দামের উপর। এখন আমরা যেটা দেখছি এটাই কিন্তু আছে। মিউচ্যুয়াল ফান্ড হল মার্কেটের প্রাণ। মিউচ্যুয়াল ফান্ডে টাকা রাখলে এর পরিমাণ বৃদ্ধি পায়। এটা এক প্রকার ইনভেস্টমেন্ট।
আপনি আপনার টাকা ব্যাংকে রাখবেন না সঞ্চয়পত্র কিনবেন সেটা আপনার ব্যাপার। কিন্তু মিউচ্যুয়াল ফান্ডে টাকা রাখলে আপনি ব্যাংক বা সঞ্চয়পত্রের থেকে বেশি লাভবান হবেন।  সুতরাং মিউচ্যুয়াল ফান্ড বাড়লে মার্কেট আস্তে আস্তে ভালো হয়ে যাবে।

প্রশ্ন: সাধারণ বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশ্যে কিছু বলুন।

এ. কাদের চৌধুরী : সাধারণ বিনিয়োগকারীদের আমি বলব ভুল-ভ্রান্তি যা হওয়ার অনেক হয়েছে। এটা স্বীকার করে নিতে হবে। তবে এখন আর গুজবে কান দেয়া যাবে না। গুজবের উপর নির্ভর করে আর কোনো শেয়ার কেনা যাবে না। বুঝে-শুনে তারপর শেয়ার কিনবেন। শেয়ারের দাম মার্কেট বিশ্লেষণ করে কিনলে তবেই লাভবান হবেন। যারা মার্কেট বোঝে না তারাই লস করবে। এখন যারা মার্কেটে আসবে তাদের প্রতি আমার আবেদন, তারা যেন দেখে-শুনে শেয়ার কেনেন।

মন্তব্য প্রদান করুন

*


*